সুজানগর উপজেলার দুলাই ক্লাস্টারের অনন্য দৃষ্টান্ত “বিধান চন্দ্র ঘোষ”

সুজানগর উপজেলার দুলাই ক্লাস্টারের অনন্য দৃষ্টান্ত “বিধান চন্দ্র ঘোষ”

সুজানগর উপজেলার দুলাই ক্লাস্টারের অনন্য দৃষ্টান্ত “বিধান চন্দ্র ঘোষ”

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট।। পাবনার সুজানগর উপজেলার দুলাই ক্লাস্টারের প্রাথমিক শিক্ষার মানউন্নয়নে রোল মডেল হিসাবে এই করোনা কালীন শিক্ষা কার্যক্রম বন্ধ থাকাকালীন ও নিষ্ঠার সাথে কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন সকলের শ্রদ্ধাভাজন সহকারী উপজেলা শিক্ষা অফিসার জনাব বিধান চ্ন্দ্র ঘোষ ।

তিনি একজন দক্ষ,অভিজ্ঞ, বন্ধু সুলোভ,শিক্ষক বান্ধব, রুচিশীল নান্দনিক মনের মানুষ। দুলাই ক্লাস্টারে তিনি দায়িত্ব পাওয়ার পর অল্প সময়ের মধ্যেই ২১ টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের কচিকাচা শিশুদের নিকট আকর্ষণীয় ও আনন্দ বিনোদনের মধ্যে দিয়ে পড়ালেখার জন্য বিদ্যালয়গুলি দৃষ্টিনন্দন ও আকর্ষণীয়
করে সকলের দৃষ্টি আকর্শন করেছেন।

এরই ধারাবাহিকতায় সকল বিদ্যালয়ে মুক্তি যুদ্ধ কর্ণার, বঙ্গবন্ধু কর্ণার, বঙ্গবন্ধু বুক কর্ণার, সততা স্টোর,ফুলের বাগান সহ আনন্দঘন পরিবেশে যাতে শিক্ষা অর্জিত হয় তার জন্য নানাবিধ পদক্ষেপ গ্রহণ করেন।তিনি শিক্ষকগনের সাথে সৃজনশীল মনোনিবেশ পরিবেশে পড়ালেখার জন্য প্রাক প্রাথমিক শ্রেণীকক্ষ সহ বিদ্যালয়ের সকল শ্রেণীকক্ষ সজ্জিত করণ করতে উৎসাহিত করে তোলেন।

সকল শিক্ষক বৃন্দের সাথে আন্তরিকতার সহিত সহোযোগীতা মুলোক মনোভাব নিয়ে তাদের কাজের দিকনির্দেশনা দিয়ে আসছেন।
বর্তমানে করোনাকালীন পরিস্হিতিতেও বিদ্যালের উন্নয়ন মূলক কর্মকাণ্ড নিয়মিত দেখভাল করে আসছেন।

তিনি প্রধান শিক্ষকগণের সাথে জুম এ্যাপসের মাধ্যমে ভার্চু্য়াল মিটিং পরিচালনা সহ ২০২০-২০২১ অর্থবছরের বার্ষিক কর্ম সম্পাদন চুক্তি করেছেন।
তিনি দুলাই ক্লাস্টারে ম্যাসাঞ্জার গ্রুপ তৈরি করে প্রয়োজনীয় নির্দেশনাবলি ও তথ্য আদান প্রদান করে আসছেন।
বিধান চ্ন্দ্র ঘোষ,প্রধান শিক্ষকগনের সহিত প্রতি সপ্তাহে ১ দিন ও সহকারী শিক্ষকগনের সহিত জুম মিটিং সহ সরাসরি সভায় সামাজিক দুরত্ব বজায়ে রেখে বিদ্যালের সার্বিক পরিস্হিতি ও সরকারি নির্দেশনা বাস্তবায়নের জন্য পরামর্শ দিয়ে আসছে।
বাংলাদেশ সংসদ টেলিভিশন ও এফ এম রেডিওতে প্রচারিত ” ঘরে বসে শিখি” পাঠদান কার্য্যক্রম দেখতে ও শুনতে শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের উদ্বুদ্ধকরণের জন্য প্রধান শিক্ষকদের মাধ্যমে সহকারী শিক্ষকদের পরামর্শ প্রদানকার্য্য পরিচালনা করে চলছেন। মুঠোফোনের মাধ্যমে প্রতিদিন ৫ জন ছাত্র/ছাত্রী বা অভিভাবকের সাথে পড়ালেখার বিষয়ে আলোচনা চালিয়ে যাওয়ার জন্য এ সংক্রান্ত রেজিস্টার বহি ব্যাবহারের নির্দেশ প্রদান করেন প্রধান শিক্ষকগনের। করোনা পরিস্হিতিতেও তিনি নানামুখী কর্ম চালিয়ে যাচ্ছেন।
তার এই কর্ম প্রচেষ্টা দক্ষতায় দুলাই ক্লাস্টারের প্রাথমিক শিক্ষার মান উন্নয়নের চাকা অব্যাহত থাকুক এটাই এ এলাকার সকলের কামনা।
বিধান চন্দ্রের আরেক পরিচয় সেটি হলো তিনি “প্রকৃতি প্রেমী” প্রকৃতি দেখলেই তার মন হারিয়ে যায় কিছু সময়ের জন্য আর সেই দৃশ্যের ছবি না তুলতে না পারলে তার দু,চোখে যেনো ঘুম আসে না।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *